রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ‘৩৩৩’ এ ফোন পেয়ে খাবার নিয়ে গেল ইউএনও রাজীবুল ইসলাম খান করোনার কারনে পালিত হচ্ছেনা বিশ্বকবি রবি ঠাকুরের ২৫ শে বৈশাখে ১৬০ তম জন্মজয়ন্তী কুষ্টিয়ার কুমারখালী হতদরিদ্রের জন্য বিনামূল্যে মিলছে ঈদ বস্ত্র গেমেস’র নেশায় আসক্ত হয়ে ধ্বংস হচ্ছে হাজারো যুবক বকচরায় মৎস্য ঘের থেকে যুবকের ভাসমান মরদেহ উদ্ধার টাঙ্গাইলে র‍্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার কেমন আছেন সাতক্ষীরার ইত্যাদি খ্যাত চুল দিয়ে গাড়ি টানা যুবক আব্দুস সবুর কুমারখালীর শ্রমিকরা পেল প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ নাগরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত কুমিল্লা মুরাদনগরে উপজেলায় পথচারীদের মাঝে যুবলীগের ইফতার বিতরণ

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমানের যোগদানের এক বছর আজ

এনামুল হক ইমন,কুমারখালী প্রতিনিধি। / ৩০ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১, ৬:০৩ অপরাহ্ন

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমানের যোগদানের এক বছর আজ।

কুমারখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবুর রহমানের যোগদানের এক বছর আজ। গত এই এক বছরের সময়ে সফলতার ঝুলিতে যোগাড় হয়েছে অনেক কিছু—
একদিকে মানুষের ভালোবাসা, আস্থা, বিশ্বাস তার সাথে আইন শৃঙ্খলার অসাধারণ উন্নতি —
সেই পথ পরিক্রমায় কুমারখালী থানায় যোগদানের বয়স এক বছর।
কুষ্টিয়ার সাবেক পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত পিপিএম এবং সুযোগ্য পুলিশ সুপার খাইরুল আলমের আস্থা ভাজন এই চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা একেরপর এক সফলতা দেখিয়ে চলেছেন —
গত ৫ নভেম্বর ২০২০ ইং কুষ্টিয়া রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে পড়ে থাকা অজ্ঞাত পরিচয় নারীর লাশ উদ্ধারের পর ৬ ঘন্টার মধ্যে লাশের পরিচয় সনাক্ত করেই ক্ষান্ত হননি এক সপ্তাহের মধ্যে লাশের গায়ের ফিঙ্গার প্রিন্ট ধরে হত্যাকারী সনাক্ত করে বরিশাল থেকে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় আনার মতো অসামান্য অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছেন তিনি।
শুধু তাই নয় গত কয়েক মাস আগে কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের সান্দিয়ারা বাজারে অনেক বড় ধরনের সংঘর্ষ হয়েছিল, যদিও সে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছিল তারপরও তার বিচক্ষণতা এবং সাহসী পদক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছিল। না হলে সেদিন হতাহতের সংখ্যা অনেক বেড়ে যেত–

এরপর ধলনগর বাজারে অনুরূপ একটা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে কিন্তু উনার পূর্ব প্রস্তুতি থাকার কারণে সেদিনও এলাকার মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পেরেছিলেন। এবং বিচক্ষণতার কারণে ঐ এলাকায় অদ্যবতি আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রয়েছে। তার কিছু দিন পর যদুবয়রা ইউনিয়নের চাঁদপুর বাজারের পাশে মাছধরা কে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ জড়িয়ে পড়ার আগেই তা নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছেন, এ ছাড়াও জানা অজানা অনেক কাজে তিনি নিজেকে সাহসীকতার সাথে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে।

সব মিলিয়ে কুমারখালী উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

তার এই অসামান্য অবদানের জন্য আমি আমার পক্ষ থেকে নান্দনিক অভিনন্দন শুভেচ্ছা শুভ কামনা জানাই। পাশাপাশি সকল ধরনের পরামর্শ সহযোগিতার হাত প্রসারিত রাখতে প্রত্যয় ব্যক্ত করছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর