বুধবার, ০৪ অগাস্ট ২০২১, ০৭:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
দেশের ক্লান্তি লগ্নে ও মানবিক বিপর্যয়ে শান্তির বার্তা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন নেত্রকোণা আওয়ামী যুবলীগ কুষ্টিয়া ভেড়ামারায় স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় জরিমানা শালিকার নগ্ন ভিডিও ফেসবুকে, দুলাভাই আটক শ্বশুরকে পিটিয়ে তালাক দেওয়া স্ত্রীকে অপহরণ তালবাড়িয়া ৯নং ওয়ার্ডের কল্যাণপুর গ্রামের রাস্তা নির্মাণের ছয় মাস যেতে না যেতেই রাস্তায় ধস: সংস্কার জরুরী খোকসায় বৈরি আবহাওয়াতেও চলছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান খোকসায় সোনালী আঁশ পাট ঘরে তুলতে শুরু করেছে কৃষকেরা কুষ্টিয়ায় নিষিদ্ধ যৌন উত্তেজক ঔষধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানে অভিযানঃ ০১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড ও ০২ লাখ টাকা অর্থদন্ড কুষ্টিয়ায় পদ্মা নদীতে পড়ে যাওয়া ফুটবল তুলতে গিয়ে ডুবে নিখোঁজ দুই কলেজ ছাত্র খোকসায় মাদকসহ মাদক কারবারি আটক

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আজও জমা দেয়নি র‍্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদক / ১১০ বার পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১২ মার্চ, ২০২১, ১০:৩৪ পূর্বাহ্ন

নোবাজ্জেল হোসেন সোহানঃ আলোচিত সাংবাদিক দম্পতি  সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আজও জমা দেয়নি র‍্যাব।

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্তের চুড়ান্ত  প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল গত বৃহস্পতিবার। তবে র‍্যাবের পক্ষ থেকে গতকাল  আদালতে প্রতিবেদন জমা দিতে কেও আসেনি।

আদালত আগামী ২১ এপ্রিল এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য দিন ধার্য করেন। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী এই আদেশ দেন।

আদালতের নথিপত্রের তথ্য বলছে, এ নিয়ে এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য আদালত ৭৯ বার সময় দিলেন।গতকাল এর আগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আজকের দিন (১১ মার্চ) ধার্য করেছিলেন।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি নৃশংসভাবে খুন হন। ফ্ল্যাটে তাঁদের ক্ষতবিক্ষত লাশ পাওয়া যায়।

সাগর মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক ছিলেন। রুনি এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের সময় বাসায় ছিল তাঁদের সাড়ে চার বছরের ছেলে মাহির সরওয়ার মেঘ।

সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের পর ঘটনাস্থলে এসে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন বলেছিলেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হত্যার রহস্য উদঘাটন করা হবে। সেই ৪৮ ঘণ্টা এখন নয় বছর পেরিয়ে গেছে।

সাগর-রুনি হত্যার ঘটনায় রুনির ভাই নওশের আলম বাদী হয়ে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। প্রথমে এই মামলা তদন্ত করছিল শেরেবাংলা নগর থানার পুলিশ। চার দিন পর চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়।

তদন্তের দায়িত্ব পাওয়ার ৬২ দিনের মাথায় ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল হাইকোর্টে ব্যর্থতা স্বীকার করে ডিবি। এরপর আদালত র‍্যাবকে মামলা তদন্তের নির্দেশ দেন। সেই থেকে র‍্যাব মামলাটি তদন্ত করছে।

দীর্ঘ ৯ বছরেও সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শেষ না হওয়ায় পরিবার, স্বজন, সহকর্মী ও সাংবাদিক নেতারা হতাশ-ক্ষুব্ধ-ব্যথিত।

সাগর-রুনির পরিবার ও স্বজনেরা বলছেন, ৯ বছর ধরে এই মামলায় কাজের কাজ কিছু হচ্ছে না। এ অবস্থায় তাঁরা বিচারের আশা দেখছেন না।

সম্প্রতি সাগরের মা সালেহা মনির (৬৯) প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমার আরজি, আদালত যেন আর সময় না দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য র‍্যাবকে সময় বেঁধে দেন। প্রধানমন্ত্রী যেন মুজিব বর্ষে এই নৃশংস হত্যার বিচার নিশ্চিত করেন।’

আর রুনির মা নুরুন নাহার মির্জা (৬২) প্রথম আলোকে বলেন, ‘আশায় আছি, বিচার পাব। কিন্তু পাচ্ছি না।’


আপনার মতামত লিখুন :

Comments are closed.

এ জাতীয় আরো খবর ....
এক ক্লিকে বিভাগের খবর